১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
রাজাকার শ্লোগানধারীদের ছাত্রত্ব বাতিলসহ গ্রেফতারের দাবিতে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল: মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের রায় কার্যকর করার দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল উন্মুক্ত হলো ঢাকা-সুইজারল্যান্ড সরাসরি ফ্লাইটের দ্বার ৫ কারণে কোপা যাবে আর্জেন্টিনায় দেশে ফিরলেন ওবায়দুল কাদের দেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে আরব আমিরাতের বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী ড. ইউনূস আসামি, উনি এভাবে কথা বলতে পারেন না’ গাজায় মার্কিন যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবনার জবাবে যা জানাল ফিলিস্তিনিরা দিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে ঢাবিতে আনন্দ মিছিল
  • প্রচ্ছদ
  • অপরাধ >> আইন আদালত
  • স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ: একজনের মৃত্যুদণ্ড, আরেকজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড
  • স্কুলছাত্রীকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ: একজনের মৃত্যুদণ্ড, আরেকজনের আমৃত্যু কারাদণ্ড

    মুক্তি কন্ঠ

     

    নাটোরের লালপুরে এক স্কুলছাত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণের দায়ে সুমন আলী নামে একজনকে মৃত্যুদণ্ড এবং রফিকুল ইসলাম নামে আরেকজনকে আমৃত্যু কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। পাশাপাশি দণ্ডপ্রাপ্ত দু’জনকেই ৩০ হাজার টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে।

    রোববার নাটোরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল (জেলা ও দায়রা জজ) আদালতের বিচারক মুহাম্মদ আব্দুর রহিম এই রায় ঘোষণা করেন। জরিমানার অর্থ ভিকটিম পাবে বলে রায়ে উল্লেখ করা হয়েছে।

    নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যনালের স্পেশাল পিপি অ্যাডভোকেট আনিসুর রহমান জানান, স্কুলে যাওয়া-আসার পথে বিভিন্নভাবে ওই স্কুলছাত্রীকে উত্ত্যক্ত করত বখাটে সুমন আলী। বিষয়টি স্কুলছাত্রী বাড়িতে জানালে ক্ষিপ্ত হয়ে সুমন তার সহযোগীদের নিয়ে ২০১৬ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি ওই স্কুলছাত্রীর বাড়িতে গিয়ে যায়। এ সময় তারা স্কুলছাত্রীর মাকে একটি ঘরে আটকে রেখে তাকে অপহরণ করে মাইক্রোবাসে করে নিয়ে চলে যায়। চিৎকার শুনে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে স্কুলছাত্রীর মায়ের ঘরের দরজা খুলে দেয় এবং তার বাবাকে খবর দেয়। পরে ভুক্তভোগী স্কুলছাত্রীর বাবা স্থানীয়দের নিয়ে সুমনের বাড়ি গিয়ে মেয়েকে ফেরত চাইলে তারা বিভিন্ন টালবাহানা করেন। পরে এ ঘটনায় স্কুলছাত্রীর বাবা সুমন আলীসহ ছয় জনের নাম উল্লেখ করার পাশাপাশি অজ্ঞাত আরও তিনজনকে আসামি করে লালপুর থানায় একটি মামলা করেন। মামলা করার পর পুলিশ ভিকটিমকে উদ্ধার ও সুমনকে গ্রেপ্তার করে।

    পিপি আনিসুর জানান, পরে পুলিশ তদন্ত করে সুমন আলী ও রফিকুল ইসলামকে অভিযুক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করে। আদালত সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে দীর্ঘ সাড়ে ৬ বছর পর রোববার মামলার রায় ঘোষণা করেন।

     

    তথ্য সুত্র: সমকাল