১৬ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১লা শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম :
রাজাকার শ্লোগানধারীদের ছাত্রত্ব বাতিলসহ গ্রেফতারের দাবিতে মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল: মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের রায় কার্যকর করার দাবিতে শাহবাগে সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল উন্মুক্ত হলো ঢাকা-সুইজারল্যান্ড সরাসরি ফ্লাইটের দ্বার ৫ কারণে কোপা যাবে আর্জেন্টিনায় দেশে ফিরলেন ওবায়দুল কাদের দেশের অর্থনৈতিক অঞ্চলে আরব আমিরাতের বিনিয়োগ চান প্রধানমন্ত্রী ড. ইউনূস আসামি, উনি এভাবে কথা বলতে পারেন না’ গাজায় মার্কিন যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবনার জবাবে যা জানাল ফিলিস্তিনিরা দিল্লি পৌঁছেছেন প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধা কোটা পুনর্বহালের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়ে ঢাবিতে আনন্দ মিছিল
  • প্রচ্ছদ
  • অর্থনীতি >> মতামত >> সারাদেশ
  • জ্বালানি খাতে ভর্তুকি না দেওয়ার সিদ্ধান্ত সরকারের: নসরুল হামিদ
  • জ্বালানি খাতে ভর্তুকি না দেওয়ার সিদ্ধান্ত সরকারের: নসরুল হামিদ

    মুক্তি কন্ঠ

     

    বিদ্যুৎ,জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেছেন, গ্রামে যে ছোট ছোট ব্যবসা তৈরি হয়েছে সেটা বিদ্যুতের আলোর কারণে। প্রত্যন্ত গ্রামের বাজার এখন গভীর রাতেও খোলা থাকে। যেখানে এখন রাত ১২টার দিকেও ব্যবসা চলে। এ কারণেই কিন্তু জিডিপির এত বেশি গ্রোথ হচ্ছে। আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতে যা গ্রোথ হয়েছে তার থেকে অনেক পরিবর্তন হয়েছে গ্রামে।

     

    রোববার (১২ মার্চ) বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এফবিসিসিআই আয়োজিত বাংলাদেশ বিজনেস সামিটে এনার্জি সিকিউরিটি: স্ট্রেটেজিক অ্যাপ্রোচ ফর এনার্জি সিকিউরিটি টু এটেইন সাসটেইনেবল গ্রোথ শীর্ষক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন।

     

    প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি বলেন, একটা গ্রামে ১০টা বাড়ি সেখানেও সাবস্টেশন করা হয়েছে। যেখানে ১০০ বছর বিল দিলেও সেটার দাম উঠবে না। তারপরও আমরা সেখানে বিদ্যুতের ব্যবস্থা করেছি। আমরা সব জায়গায় ব্যবসা দেখিনি। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন সবার ঘরে বিদ্যুৎ দেওয়া হবে। ক্যাপাসিটি কি পরিমাণ বেড়েছে সেটা জিডিপির গ্রোথ দেখলেই জানা যায়।

     

     

    জ্বালানির মূল্যবৃদ্ধি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারত তারা যে দামে জ্বালানি কিনছে সে দামেই বিক্রি করছে। সরকার এখন সিদ্ধান্ত নিয়েছে জ্বালানি খাতে আর কোনো ভর্তুকি দেওয়া হবে না। ক্রমান্বয়ে আমরা অ্যাডজাস্টমেন্টে যাবো।

     

     

    কয়লা নিয়ে প্রচুর সমালোচনা শুনতে হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, অন্য দেশ কয়লা সব উঠিয়ে ফেলেছে, আমরা কেন তুলছি না। আমরাও তাদের মতো যে ঝাঁপিয়ে পড়বো সেটা কীভাবে হয়। যেখানে হাজার হাজার একর কৃষিজমি নষ্ট হবে সেই কৃষকদের কি হবে? আমরা যদি সেখানে পাওয়ায় প্ল্যান্ট বানাই কৃষক তো সেখানে কাজ করতে পারবে না। তারা তো বেকার হয়ে যাবে। তাদের জমির টাকা দেবেন দুদিনে তা খরচ করে ফকির হয়ে যাবে। তার ইকোনমির বিষয়টাও আমাদের চিন্তা করতে হয়। সব বিষয়ে আমাদের চিন্তা করতে হয়।

     

    সেমিনারে উপস্থিত ছিলেন ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স বাংলাদেশের সভাপতি মাহবুবুর রহমান, বিদ্যুৎ বিভাগের সচিব হাবিবুর রহমান, বুয়েটের অধ্যাপক ইজাজ হোসাইন, সামিট গ্রুপের চেয়ারম্যান আজিজ খান, ম্যাক্স গ্রুপের চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর প্রমুখ।

     

    তথ্য সুত্র: জাগো নিউজ